Header Border

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৬ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১লা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ (বর্ষাকাল)
শিরোনাম
হাজীগঞ্জে ৯ দিনে দুই সিএনজি চুরি, আতঙ্কিত চালকরা  বঙ্গবন্ধু আইন ছাত্র পরিষদ কুমিল্লা অঞ্চলের  সভাপতি শান্ত ও সম্পাদক আরাফাত হাজীগঞ্জে কাব স্কাউট দলের গ্রুপ সভাপতি ও ইউনিট লিডারদের মতবিনিময় হাজীগঞ্জে কোটা সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলায় এই প্রথম হেলিকপ্টারে চড়ে বিয়ে করতে এলেন লালমনিরহাটের বর ‘আল আমিন মামুন’ হাজীগঞ্জে স্বর্ণকলি কেজি ও হাই স্কুলের পক্ষ থেকে উপজেলা চেয়ারম্যানকে ফুলেল শুভেচ্ছা হাজীগঞ্জে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক প্রকল্প পরিদর্শন করলেন স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব ফরিদগঞ্জে ৭৬ লক্ষ টাকার রাস্তার কাজ চলছে রাবিশ দিয়ে ফরিদগঞ্জে ১৪ কেজি গাঁজাসহ এক মাদক কারবারিকে আটক হাজীগঞ্জে প্রবাসী পরিবারের স্ত্রী, বৃদ্ধের উপর প্রতিপক্ষের হামলা

ফরিদগঞ্জে ভাইয়ের জীবন বাঁচাতে অতন্দ্র প্রহরীর মত পাহাড়া দিচ্ছেন পাঁচ বোন নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে ভাই ।

ফরিদগঞ্জে পাঁচ বোনের একমাত্র ভাইয়ের জীবন বাঁচাতে অতন্দ্র প্রহরীর মত পাহাড়া দিচ্ছেন পাঁচ বোন। ভাইকে হারানোর ভয় কাটছে না তাদের মন থেকে। বাড়ির প্রতিপক্ষ ও তাদের দলবল ১৮-ই মার্চ রাতে সন্ত্রাসী হামলা করেছে- অভিযোগ হামলার শিকার মোজাম্মেল হোসেন কালু, তার পাঁচ বোন ও বৃদ্ধ মা’র। জীবনে মেরে ফেলার চেষ্টা করা হয়েছে মর্মে চাঁদপুরের বিজ্ঞ আমলী আদালতে মামলা দায়ের করেছেন হামলার শিকার কালু। তারা দাবী করেছেন, এখনও কালু জীবনের নিরাপত্তা হীনতা বোধ করছেন। ঘটনা ঘটেছে, উপজেলার রূপসা দক্ষিণ ইউনিয়নের সাহেবগঞ্জ গ্রামে। কালুর বাবা বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল মতিন মৃত্যু বরণ করেছেন ২০২০ সালের জানুয়ারি মাসে। জমিজমার বিরোধকে কেন্দ্র করে, বাবার মৃত্যুর পর প্রতিপক্ষরা আরও বেশি চড়াও হয় কালুর ওপর- দাবী কালু ও তার পরিবার সদস্যদের।
অভিযোগ সূত্র ও সরজমিন জানা গেছে, ঘটনার রাতে আনুমানিক সাড়ে সাত ঘটিকায় তারাবির নামাজ পড়তে পাশর্^বর্তী মসজিদের উদ্দেশে কালু বাড়ি থেকে বের হন। আযানের অপেক্ষায় তিনি নিকটস্থ একটি চা দোকানে বসেন। কিছুক্ষণ পর তাকে একজন খবর জানায়, তার প্রতিপক্ষরা কিছু সংখ্যক যুবকসহ দেশিয় অস্ত্র নিয়ে তার ওপর হামলার জন্য এগিয়ে আসছে। খবর পেয়ে তিনি দ্রæত ওই দোকান থেকে উঠে মসজিদের দিকে যান। ওই মসজিদের সামনে মো. হোসেন (৪৫), সেলিম (৪০), ফারুক (২০) রিয়াদ হোসেনসহ ৭/৮ জনের একটি দল তার ওপর হামলা চালায়। এতে, তিনি রক্তাক্ত জখম হন। তার ডাক চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে নিকটস্থ একটি দোকানের সামনে নিয়ে শুইয়ে দেন। এরপর, গাড়ি এনে তাকে ফরিদগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরূরী বিভাগে নিয়ে যান। ডাক্তার তাকে ভর্তি করেন ও চিকিৎসা দেন।
চিকিৎসা নিয়ে ২৫-এ মার্চ কালু বাদী হয়ে বিজ্ঞ আদালতে মামলা (নং ১৯৭, তারিখ: ২৫-০৩-২০২৪ খ্রিঃ) দায়ের করেন। মামলায়, তার ওপর হামলা, জখম, নিরাপত্তা হীনতাসহ আসামীদের নাম উল্লেখ করেন। এতেও, নিরাপত্তার অভাব বোধ করায় তিনি চাঁদপুর জেলা প্রশাসক বরাবর ঘটনা উল্লেখ করে একটি লিখিত আবেদন করেছেন।
সরজমিন ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, কালুর ওপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা অনেকেই প্রত্যক্ষ করেছেন। নিরাপত্তা হীনতায়, নাম প্রকাশ না করার অনুরোধ করে কালুর ওপর সন্ত্রাসী হামলার বর্ণনা দিয়েছেন। তারা বলেছেন, বাড়ির প্রতিপক্ষরা ভাড়াটে বেশ কয়েকজন যুবক এনেছে।
প্রত্যক্ষদর্শী, প্রতিবেশি মেহের উল্লা (৫২) বলেন, কালুর ওপর সন্ত্রাসী হামলার অভিযোগ সত্য। হামলার সময় অনেকেই দেখেছেন। কিন্তু, ভয়ে কেউ বাধা দিতে পারেন নি। একইভাবে এলাকার শাহজাহান (৫৫) বলেছেন, কালুর ওপর নির্মমভাবে শারীরিক নির্যাতন করা হয়েছে। হামলার জন্য তারা কালুর অভিযুক্তদের দায়ী করেন। এক প্রশ্নের উত্তরে তারা বলেছেন, জমিজমার বিরোধের জের ধরে ওই হামলার ঘটনা ঘটেছে।
কালুর বোনের মেয়ে গৃদকালিন্দিয়া কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী রুমা বলেন, আমি কলেজে যাওয়ার পথে মামার প্রতিপক্ষ সেলিমের ছেলে পরান (২০) ও ফারুক (২২) আমাকে উত্যক্ত করে। তারা আমাকে কটু কথা বলে। এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, তাদের ওই আচরণ আমি অনেককে জানিয়েছি।
এ বিষয়ে জানার জন্য কথা হয় সেলিম (৪৫) এর সঙ্গে। অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি হামলার ঘটনা অস্বীকার করেন। তিনি বলেন কালুর ওপর কারা হামলা করেছে আমরা জানি না। প্রসঙ্গ পাল্টে তিনি বলেন, বিনা দোষে কালু আমাদের সঙ্গে জমি নিয়ে বিরোধ করছে।
এদিকে, লোক জনের সঙ্গে কথা বলার সময় পার্শ^বর্তী ৫ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি কাশেম (৫২) ও জনৈক কামাল (৫০) দুটি মোটর সাইকেলে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। তারা সংবাদ কর্মীদের প্রশ্ন করে জানতে চান, আপনাদের কে বা কারা এনেছে এখানে। এমন প্রশ্নের কারণ কি, জানতে চাইলে তারা বলেন, এমনিই। কালুর ওপর হামলা ও রুমার সঙ্গে অসদাচরণ বিষয়ে জানতে চাইলে তারা বলেন, এ সব মিথ্যা। আপনারা আসেন কোথায় হামলা হয়েছে সেখানে যাবো, মানুষের কথা শুনবো। আমরা কাদের সঙ্গে কথা বলবো তা আপনি ঠিক করে দেবেন ও সাথে থাকবেন কেনো, আপনাদের পরিচয় কি। সংবাদকর্মীদের এমন প্রশ্নে তারা নিজেদের নাম প্রকাশ করে বলেন, আমরা এলাকার গণ্যমান্য লোক। আপনারা এখানে আসলেন কিভাবে। তারা বলেন, শুনে এসেছি। ওই সময়, তাদের বিস্তারিত পরিচয় নেওয়ার পর জানা গেছে, কাশেম, কালুর প্রতিপক্ষ সেলিম এর ভগ্নিপতি।
জানতে চাইলে, এলাকার লোকজন তথ্য দিয়ে দাবী করেছেন, কাশেম ও কামাল এর আশ্রয় প্রশ্রয়ে কালুর ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে ও তারা নিরাপত্তা হীনতায় রয়েছে। কালুর বৃদ্ধ মা মমিনা বেগম (৭০) বলেন, আমার ছেলেকে ওরা মেরে ফেলবে। বড় বোন ফাতেমা (৫০)সহ সকল বোন, মা ও বোনের মেয়ে আতংক প্রকাশ করে বলেছেন, মোজাম্মেল হোসেন কালুর জীবনের নিরাপত্তা চাই। ওরা যে কোনো সময় কালুকে মেরে ফেলতে পারে। বোনেরা দাবী করে বলেন, আমরা স্বামীর সংসার ছেড়ে প্রতিদিন পালা করে ভাইয়ের বাড়ি আসি, ভাইকে আগলে রাখি।

আরো পড়ুন  হাসপাতালের গাছতলায় ঠাঁই নিয়েছেন ডাইরিয়া রোগীরা।

আপনার মতামত লিখুন :

আরও পড়ুন

হাজীগঞ্জে ৯ দিনে দুই সিএনজি চুরি, আতঙ্কিত চালকরা 
বঙ্গবন্ধু আইন ছাত্র পরিষদ কুমিল্লা অঞ্চলের  সভাপতি শান্ত ও সম্পাদক আরাফাত
হাজীগঞ্জে কাব স্কাউট দলের গ্রুপ সভাপতি ও ইউনিট লিডারদের মতবিনিময়
হাজীগঞ্জে কোটা সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল
চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলায় এই প্রথম হেলিকপ্টারে চড়ে বিয়ে করতে এলেন লালমনিরহাটের বর ‘আল আমিন মামুন’
হাজীগঞ্জে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক প্রকল্প পরিদর্শন করলেন স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব

আরও খবর